জামিয়ার সংবিধান

আল জামেয়াতুল ইসলামিয়া (জমিরিয়া কাসেমুল উলুম) পটিয়া, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ

[১৩৭৯ হিজরী জিলক্বদ মাসে মজলিসে শূরা কর্তৃক গৃহীত ও প্রকাশিত]

 

ভূমিকা:

মজলিশে শুরার কতিপয় সদস্য এ ব্যাপারে জামেয়া প্রধানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন যে, মাদ্রাসার খেদমত (সেবা) এ কার্যক্রমের পরিধি অনেক বিস্তৃত হতে যাচ্ছে। অতএব মাদ্রাসার উন্নতি-অগ্রগতি প্রতক্ষ্য করে অন্যান্য দ্বীনি প্রতিষ্ঠানগুলো এর সাথে সংযোজিত হচ্ছে। সুতরাং জরুরী ভিত্তিতে মাদ্রাসার মূলনীতি ও সংবিধান প্রণয়ন করা প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে। যার প্রেক্ষাপটে জামেয়ার বিভাগীয় কার্যক্রম ও তৎসংশ্লিষ্ট মাদ্রাসাসমূহ এ বিভাগের আওতাধীন হয়ে সুচারুরূপে দ্বীনি শিক্ষার প্রচার-প্রসারের গুরুদায়িত্ব সম্পন্ন করতে সমর্থ হবে।

অতএব, উক্ত পরামর্শের ভিত্তিতে জামেয়া প্রধান সংবিধান রচনাপূর্বক ২৯ শে জিলক্বদ ১৩৭৯ হিজরী জামেয়ায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে পেশ করেন এবং মজলিশে শূরা সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহণ করেন জামেয়া প্রধানের উপর এর প্রকাশনার দায়িত্ব অর্পণ করেন।

 

সংবিধান

১. এ প্রতিষ্ঠানের নাম হবে ‘জামেয়াতুল ইসলামিয়া’ প্রকাশ-জমিরিয়া কাসেমুল উলুম মাদ্রাসা।

পরিচিতি:

২. এ বিধিবিধান ও নীতিমালার সমষ্টিগত নাম হবে ‘জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়ার সংবিধান’।

৩. এ সংবিধান প্রণয়ন ও অনুমোদনের তারিখ, ২৯ শে জিলক্বদ, ১৩৭৯ হিজরী থেকে পূর্বেকার যাবতীয় আইন ও বিধি-বিধান রহিত করা হয়েছে।

 

জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়ার মৌলিক নীতিমালা:

(ক) আরবী ভাষায় ধর্মীয় শিক্ষা অর্থাৎ কোরআন, হাদীস, ফিকহ, আকায়েদ, তাফসীর ও কালামশাস্ত্র এবং ধর্মীয় অন্যান্য বিষয়াবলী মুসলমানদেরকে শিক্ষা দেয়া।

(খ) আরবী ভাষায় জ্ঞানার্জন এবং ধর্মীয় লক্ষ্য-উদ্দেশ্য পূরণার্থে যে সব জ্ঞান-বিজ্ঞান ও শাস্ত্রের শিক্ষা দেওয়া প্রয়োজন যা উপকারী হয়, তদ্রুপ উর্দূ, ফারসী, বাংলা, ইংরেজী প্রভৃতি ভাষাসমূহ ও প্রয়োজনমত শিক্ষা দেওয়া।

(গ) রচনা, বক্তৃতা এবং ধর্মীয় শিক্ষা ও তাবলীগের মাধ্যমে ইসলামের হেফাজত ও প্রচার-প্রসারের দায়িত্ব পালন করা এবং মুসলমানদের মধ্যে সলফে সালেহীনের ন্যায় ইসলামী আখলাক, আমল ও অনুপ্রেরণা সৃষ্টি করা।

(ঘ) অন্যান্য জ্ঞান-বিজ্ঞান ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার সীমা এতটুকু থাকা প্রয়োজন, যাতে আপন লক্ষ্য শিক্ষা তথা তালীমের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর না হয়, বরং মূল লক্ষ্যের ক্ষেত্রে উপকারী বিবেচিত হয়।

(ঙ) ধর্মীয় শিক্ষা প্রচারের লক্ষ্যে বিভিন্ন স্থানে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা এবং প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসা সমূহকে ‘জামেয়ার’ সাথে সংযুক্ত করা।

 

জামেয়ার মসলক বা আদর্শ:

৪. জামেয়ার মসলক বা আদর্শ ‘আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের’ মাযহাব এবং পাঠ্যসূচী, শিক্ষাপদ্ধতি ‘দারুল উলম দেওবন্দ’ এর অনুরূপ হবে।

৫. জামেয়ার মসলক বা আদর্শের হেফাজত (যা দফা নং-৪ এ স্পষ্ট করে বলা হয়েছে) জামেয়ার সকল সদস্য ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির জন্যে অপরিহার্য্য।

৬. জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়ার কোন শিক্ষক-কর্মচারী বা কোন ছাত্রের জন্য এমন কোন সংস্থা, সংগঠন বা প্রতিষ্ঠান অথবা কোন সভা-সমাবেশে অংশগ্রহণের অনুমতি থাকবে না যা জামেয়ার ‘মসলক’ অথবা স্বার্থের পরিপন্থি। ‘ক্ষতিকর’ কিনা তার সিদ্ধান্ত নেবেন জামেয়ার সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ।

 

পরিচালনা কমিটি:

৭. জামেয়া ইসলামিয়ার যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দুটি কমিটি থাকবে। একটির নাম হবে ‘মজলিসে শূরা’ বা মন্ত্রণা পরিষদ এবং অপরটির নাম হবে ‘মজলিসে আমেলা’ বা নির্বাহী পরিষদ। জামেয়ার সুষ্ঠু পরিচালনার জন্য একজন সর্বোচ্চ যিম্মাদার থাকবেন, যাকে ‘জামেয়া প্রধান’ নামে অভিহিত করা হবে এবং তার একজন ‘নায়েব’ বা উপ-প্রধান ও একজন ‘সহকারী’ থাকবেন।

 

মজলিসে শূরার ক্ষমতা কার্যাবলী:

(ক) ‘মজলিসে শূরা’ বা মন্ত্রণা পরিষদ জামেয়ার একটি ক্ষমতাসম্পন্ন ও স্বাধীন কমিটি হিসাবে গণ্য হবে এবং জামেয়ার পরিচালনা ও শৃঙ্খলা বিধানের যাবতীয় কার্য তাদের হাতে ন্যাস্ত হবে।

(খ) জামেয়ার পরিচালনার জন্য আইন ও নীতিমালা প্রণয়ন, পূর্ববর্তী আইন ও নীতিমালা রহিত করা কিংবা সংযোজন বা সংশোধন করা।

(গ) জামেয়ার শিক্ষক ও কর্মচারীগণের নিযোগ, অব্যহতি এবং তাদের বেতন-ভাতা নির্ধারণ ও বৃদ্ধি করা।

(ঘ) জামেয়ার বিভিন্ন বিভাগের সিদ্ধান্তসমূহের অনুমোদন দেয়া কিংবা প্রত্যাখ্যান করা।

(ঙ) পাঠ্যসূচী অনুমোদন করা কিংবা সংশোধন করা।

(চ) জামেয়ার কোষাগার হিফাজত করা এবং আয়-ব্যায়ের নীতিমালা নির্দিষ্ট করা এবং পরীক্ষা করা।

(ছ) জামেয়ার মালিকানাধীন ও ওয়াকফকৃত যাবতীয় সম্পত্তির উপর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ করা এবং প্রয়োজনবশতঃ মামলা-মোকদ্দামা সংক্রান্ত কার্যক্রমের অনুমোদন দেওয়া।

(জ) ছাত্রদের আবশ্যিক বিষয়াবলীর রূপরেখা প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের নিমিত্তে মৌলিক পদ্ধতিসমূহ নির্ধারণ করা।

(ঝ) বার্ষিক আয়-ব্যায়ের হিসাব পরীক্ষা নিরীক্ষা পূর্বক অনুমোদন দেয়া।

(ঞ) উল্লেখিত ক্ষমতা ও কার্যাবলী ছাড়া জামেয়ার উন্নতি-অগ্রগতির জন্য যা কিছু প্রয়োজন ও কল্যাণকর মনে হয়, সবকিছুর ক্ষমতা ‘মজলিসে শূরার’ হাতে থাকবে।

(ট) জামেয়ার সকল চাঁদা দাতা এবং সাহায্যকারীর পক্ষ থেকে ‘মজলিসে শূরা’ শরয়ী প্রতিনিধি হবেন।

(ঠ) মজলিসে শূরার প্রত্যেক সদস্যের এ ক্ষমতা ও অধিকার আছে যে, ইচ্ছে করলে তিনি জামেয়ার সকল বিভাগের প্রধানকে অবহিত পূর্বক প্রত্যেক বিভাগ পরিদর্শন করবেন এবং পরিদর্শন বহিতে স্বীয় মন্তব্য লিপিবদ্ধ করবেন।

(ড)  ‘মজলিসে শূরা’ ইচ্ছে করলে যে কোন সদস্যকে শূরার বৈঠকে অংশগ্রহণের বাধ্যবাধকতা থেকে অব্যাহতি দিতে পারে। এ ক্ষেত্রে সদস্যের লিখিত রায় যথেষ্ট বলে গণ্য হবে।

(ঢ) ‘মজলিসে শূরা’ প্রয়োজনবশতঃ নিজের বিশেষ কোন ক্ষমতা কিংবা একাধিক ক্ষমতা ‘সাব কমিটির’ হাতে সোপর্দ করতে পারবে।

 

মজলিসে শূরা গঠন পদ্ধতি:

৮. ‍মজলিশে শূরার সদস্য সংখ্যা হবে অনুর্ধ্ব একুশ জন।

৯. যেহেতু জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়া একটি ‘কওমী’ বা বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, সেহেতু দেশের প্রত্যেক এলাকার এমন সর্ব ওলামায়ে কেরাম এ কমিটি সদস্য হবেন। যাদের প্রতি জনগণের আস্থা থাকে এবং এ ধরণের কাজকর্মের বাস্তব অভিজ্ঞতার অধিকারী হন অথবা ন্যুনপক্ষে এ ধরণের কাজ সম্পর্কে অবগত ও দক্ষতার অধিকারী হন।

১০. জামেয়া প্রধান ও শিক্ষা বিভাগের পরিচালক উভয়ে পদাধিকার বলে ‘মজলিশে শূরার’ সদস্য হবেন। প্রত্যেক বিষয়ে তাঁদের রায় ও মতামত যাচাই করা হবে। যদি তা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়ের সাথে সম্পর্কযুক্ত না হয়।

১১. ‘মজলিশে শূরার’ সদস্য পদের মেয়াদকাল হবে ৩ বৎসর। মনোনয়নের তারিখ থেকে মেয়াদ গণনা করা হবে।

১২. সকল সদস্যের মসলক বা আদর্শ জামেয়ার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ এবং শরীয়তের অনুমোদিত হতে হবে।

১৩. সদস্য পদের মেয়াদকাল শেষ হবার পর প্রত্যেক সদস্যকে এ সম্পর্কে অবহিত করা হবে এবং দ্বিতীয়বার ‘শূরার’ সদস্য মনোনীত করা হবে। মধ্যবর্তী সময়ে ‘মজলিশে শূরার’ যাবতীয় ক্ষমতা ‘জামেয়া প্রধানের’ হাতে ন্যাস্ত থাকবে। এ মধ্যবর্তী সময় অনধিক একমাস হতে পারবে।

১৪. মেয়াদকাল শেষ হবার পূর্বে উপস্থিত অন্যান্য সদস্যগণ মজলিশে শূরার অধিবেশনে শূন্য পদগুলো পূরণ করবেন।

 

মজলিশে শূরার সভাপতি সম্পাদক:

১৫. মজলিশে শূরার অধিবেশন চলাকালে শূরার সদস্যগণ যে কোন একজন সদস্যকে অধিবেশনের সভাপতি মনোনীত করবেন।

১৬. জামেয়া প্রধান মজলিশে শূরার সম্পাদক হবেন।

 

শূরার সদস্যপদের বিলুপ্তি:

১৭. নিম্নেলিখিত কারণে শূরার সদস্যপদ বাতিল বলে বিবেচিত হবে।

(ক) যদি কোন সদস্য পরলোক গমন করেন (ওফাত)।

(খ) কোন সদস্য নিজের সদস্যপদ থেকে ইস্তিফা দিলে এবং মজলিশে শূরা ইস্তিফানামা গ্রহণ ও অনুমোদন করলে।

(গ) জামেয়ার স্বার্থের পরিপন্থী কোন কর্মকান্ডের প্রেক্ষিতে মজলিশে শূরা যদি কারোর সদস্যপদ বিলুপ্তির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

(ঘ) যদি কোন সদস্য একাধারে তিনটি অধিবেশনে বিনা কারণে অংশগ্রহণ না করেন এবং এর ভিত্তিতে মজলিশে শূরা তার সদস্যপদ বিলুপ্তির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

 

মজলিশে শূরার অধিবেশন:

১৮. প্রতিবছর একবার শূরার অধিবেশন করা আবশ্যক এবং এজন্যে জিলক্বদ মাসই উপযুক্ত মাস।

১৯. নিয়মিত অধিবেশন ছাড়াও নিম্নে বর্ণিত জরুরী অবস্থাও অধিবেশন আহবান করা যেতে পারে।

(ক) যদি জামেয়া প্রধান অধিবেশন ডাকা জরুরী মনে করেন।

(খ) নির্বাহী পরিষদ যদি তাঁর প্রস্তাব অনুমোদন করেন।

(গ) মজলিশে ‍শূরার কোন সদস্যের প্ররোচনা বা আগ্রহের প্রতি আবেদনে (তৎপরতার) যদি শূরার অধিকাংশ সদস্য সমর্থন দান করেন এমতাবস্থায় তাঁর লিখিত আবেদন পেশ করার ৯০ দিনের মধ্যেই শূরার অধিবেশন আহবান করতে জামেয়া প্রধান বাধ্য থাকবেন। যদি জামেয়া প্রধান যথাযথ বা কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ না করেন, তবে উক্ত সদস্য ইচ্ছে করলে পরিস্থিতির বিবরণ উল্লেখপূর্বক শূরার সদস্যগণকে অধিবেশনে মিলিত হবার জন্য আমন্ত্রণ জানাতে পারবেন।

২০. মজলিশে শূরার বার্ষিক অধিবেশনের দাওয়াতনামা আলোচ্য সূচী সমেত অধিবেশনের অন্ততঃ ১৫ দিন পূর্বে প্রেরণ আবশ্যক। তবে জরুরী পরিস্থিতিতে এর চেয়ে কম সময়ের মধ্যেও প্ররণ করা যেতে পারে।

 

মজলিশে শূরার সভাপতির দায়িত্ব ক্ষমতা:

২১. (ক) বৈঠকের আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করা অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তা ও নীতিবিরুদ্ধ আলোচনায় বাদা প্রদান করা।

(খ) প্রয়োজনানুসারে বৈঠক বাতিল বা মূলতবী ঘোষণা করা।

(গ) আকস্মিকভাবে কোন জরুরী বিষয়কে উপস্থাপনের অনুমতি প্রদান করা।

(ঘ) উপযোগিতা অনুযায়ী এজেন্ডার (আলোচ্য বিষয়) কোন বিষয়কে প্রধান্য দেওয়া বা না দেওয়া।

 

মজলিশে শূরার কোরাম এবং ব্যবস্থাপনা:

২২. আলোচ্য বিষয় সমর্থন লাভের জন্য বৈঠকে এক তৃতীয়াংশ সদস্যের উপস্থিতিই যথেষ্ট।

২৩. মজলিশে শূরার ফায়সালা অধিকাংশ সদস্যের অভিমতের ভিত্তিতে হবে। যদি উভয়পক্ষের সমর্থকের সংখ্যা সমান হয় তাহলে সভাপতি সাহেব সমানুগ্য বিধান পূর্বক সিদ্ধান্ত নেবেন।

২৪. মজলিশে শূরার প্রত্যেক বৈঠকের কার্য বিবরণী লিপিবদ্ধ করা হবে এবং সভাপতি সাহেব বিবরণ পত্রে স্বাক্ষর করবেন।

কার্য নির্বাহী পরিষদ:

২৫. ‘কার্য নির্বাহী পরিষদ’ একটি স্বাধীন ও স্বতন্ত্র পরিষদ। জামেয়ার সমস্ত কার্যাদি অত্র পরিষদের দায়িত্ব ও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

২৬. সাত সদস্যের সমন্বয়ে এ পরিষদ গঠিত হবে। জামেয়া প্রধান এবং শিক্ষা পরিচালনা বিভাগের প্রধান উক্ত পরিষদের স্বতন্ত্র সদস্য হিসাবে থাকবেন এবং অবশিষ্ট পাঁচ সদস্য মজলিশে শূরার অন্যান্য সদস্য থেকে নির্বাচিত হবেন।

২৭. কার্য নির্বাহী পরিষদের দায়িত্ব ও ক্ষমতা মজলশে শূরার সমতুল্য হবে, তবে মজলিশে শূরা যদি কার্য নির্বাহী পরিষদের কোন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করেন, তবে তা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়াবে।

২৮. কার্য নির্বাহী পরিষদের যে কোন ব্যক্তিকে এযাযী সদস্য হিসাবে নিযুক্ত করা যাবে এবং তিনি পরিষদের যে কোন কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করতে পারবেন। তবে ভোট প্রদানে অংশ গ্রহণ করতে পারবেন না।

২৯. বছরে একবার এ পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

৩০. প্রতি তিন মাস অন্তর একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

৩১. নির্ধারিত বৈঠক ব্যতীত জামেয়া প্রধান যদি অতিরিক্ত কোন বৈঠক অনুষ্ঠানের ব্যাপারটি উপলব্ধি করেন অথবা কার্য নির্বাহী পরিষদের অধিকাংশ সদস্য তা প্রয়োজন মনে করেন অথবা মজলিশে শূরা তা প্রয়োজন মনে করেন, তবে যে কোন সময় বৈঠক আহবান করা যেতে পারে।

৩২. পাঁচ সদস্যের সমন্বয়ে এ পরিষদের কোরাম হবে।

৩৩. উক্ত পরিষদের সভাপতি উপস্থিত সদস্যবৃন্দের মধ্য হতে নির্বাচিত হবেন।

৩৪. এ পরিষদে নির্ধারিত ও অনির্ধারিত বৈঠক সম্পর্কে প্রত্যেক সদস্যকে তিন দিন পূর্বে অবহিত করতে হবে।

জামেয়া প্রধান:

৩৫. জামেয়ার সমস্ত বিভাগের তত্ত্বাবধান ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য একজন উচ্চ পর্যায়ের যিম্মাদার (দায়িত্বশীল) থাকবেন, যাকে জামেয়া প্রধান বলা হবে। তিনি নিম্নোলিখিত গুণাবলীর অধিকারী হবেন।

(ক) আলেমে বা আমল অর্থাৎ খোদাভীরু হতে হবে।

(খ) আমানতদারী ও তাকওয়ার ব্যাপারে জাতির কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে এর সাথে সাথে জামেয়ার কর্মচারীবৃন্দের উপর তাঁর প্রভাব থাকতে হবে।

(গ) জামেয়ার নীতিমালার উপর অবিচল থাকতে হবে।

(ঘ) প্রশাসনিক যোগ্যতার সাথে সাথে বাস্তব অভিজ্ঞতাও থাকতে হবে।

(ঙ) জামেয়ার কল্যাণ সাধনই তাঁর একমাত্র ব্রত হবে।

(ড) উত্তম চরিত্র, শান্ত মেজাজ এবং নিজকে ছোট মনে করার মত মহৎ গুণাবলীর অধিকারী হতে হবে।

৩৬. জামেয়া প্রধানকে সমস্ত বিভাগীয় ও মালী কার্যাবলীর ব্যাপারে মজলিশে শূরা এবং কার্য নির্বাহী পরিষদের নিকট জওয়াবদিহী করতে হবে। ‍

জামেয়া প্রধানের দায়িত্ব:

৩৭. (ক) জামেয়ার যাবতীয় দলিলপত্র এবং গুরুত্বপূর্ণ রচনা প্রভূতি সংরক্ষণ করা।

(খ) মজলিশে শূরা ও কার্য নির্বাহী পরিষদের সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়ন করা।

(গ) মজলিশে শূরা ও কার্য নির্বাহী পরিষদের সভা আহবান করা এবং (এজেন্ডা) আলোচ্য বিষয় নির্ধারণপূর্বক সদস্যবৃন্দের নিকট প্রেরণ করা।

(ঘ) মজলিশে শূরা এবং কার্য নির্বাহী পরিষদের সভাগুলোর রির্পোট তৈরী করা।

(ঙ) জামেয়া সম্পর্কিত চিঠিপত্র এবং যাবতীয় চিঠিপত্রের উত্তর স্বাক্ষর পূর্বক প্রেরণ করা।

(চ) মজলিশে শূরার সিদ্ধান্ত সমূহের অনুলিপি সদস্যবন্দের নিকট প্রেরণ করা।

(ছ) জামেয়ার মানিঅর্ডার এবং হাতে হাতে প্রাপ্ত নগদ অর্থ স্বাক্ষরযুক্ত রসিদ অথবা চেকের মাধ্যমে সংগ্রহ করা।

(জ) মুতাওয়াল্লী হিসাবে জামেয়ার ওয়াকফকৃত সম্পদ ও স্থাবর সম্পদ অধিকারে আনা।

(ঝ) দৈনন্দিন জমা খরচ পরীক্ষাপূর্বক তাতে দস্তখত করা।

(ঞ) জামেয়ার আর্থিক ব্যয় অনুমোদন করা এবং স্বাক্ষরযুক্ত চেক ইত্যাদি হস্তান্তর করা।

(ট) প্রয়োজনবশতঃ মোকদ্দমা পরিচালানা করা এবং সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কিত কাগজপত্রে নির্দেশ লিখা।

(ঠ) বিভাগীয় কাগজপত্রে নির্দেশ লিখা।

(ড) বিভাগীয় দায়িত্বশীলদের দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করা এবং সমস্যা সমাধান করা।

(ঢ) ছাত্রদের থাকা, খাওয়া, কিতাব এবং অন্যান্য প্রয়োজন পূরণের ব্যবস্থা করা।

(ণ) বিভাগীয় কার্যকলাপ পরিদর্ন করা এবং কিতাব ও এর সম্পর্কীয় কাগজপত্রের রিপোর্ট লিখা।

(ত) বার্ষিক রিপোর্ট প্রকাশ করা।

জামেয়া প্রধানের ক্ষমতা:

৩৮. মজলিশে শূরার পক্ষ হতে জামেয়া প্রধান নিম্নলিখিত ক্ষমতার অধিকারী হবেন।

(ক) জামেয়ার জন্য গৃহীত কর্মচারীকে নিয়োগ প্রদান।

(খ) কোন শিক্ষক বা কর্মচারী যদি তার দায়িত্ব পালনে অবহেলা প্রদর্শন করেন অথবা জামেয়ার আইন-শৃঙ্খলা বাধাপ্রাপ্ত হয়, তাহলে দু’একবার তাকে সতর্ক করা, এর পরও তার কর্মকান্ড সন্তোষজনক না হলে কার্য নির্বাহী পরিষদে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ পেশ করা।

(গ) যে সমস্ত ছাত্র জামেয়ার পরিবেশ কলুষিত করে অথবা প্রকাশ্যে জামেয়ার কোন আইন অমান্য করে অথবা জামেয়ার শিক্ষকবৃন্দের সাথে অসৎ ব্যবহার করে তাহলে তাদেরকে হুঁশিয়ার করা বা জামেয়া হতে বহিস্কার করা।

(ঘ) জামেয়ার আমদানী (আয়ের) এর কাজ চালিয়ে নেওয়া এবং উক্ত সদস্য লিখিতভাবে কার্য নির্বাহী পরিষদে উপস্থাপন করা।

(ঙ) বিভাগীয় পরিচালকবৃন্দকে বিভাগীয় আইন-কানুন সমূহ কার্য নির্বাহী পরিষদ কর্তৃক অনুমোদন করার ব্যাপারে পরামর্শ দান করা।

৩৯. জামেয়া প্রধানের ক্ষমতা থাকবে যে, কাজের সুবিধার্থে বর্তমান বিভাগগুলো অথবা ভবিষ্যতে যত বিভাগ খোলা হবে এর প্রত্যেক অথবা কয়েকটি বিভাগের জন্য এমন একজন সুদক্ষ পরিচালক বা নাজেম নিযুক্ত করা, যাঁর মধ্যে ওই সকল খেদমতের জন্যে নাজেম সাহেবানকে ভাতা (বেতন) প্রদান করা হবে।

৪০. বিভাগীয় নাজেম জামেয়া প্রধানের নিকট জবাবদিহী করবেন এবং প্রয়োজনবশতঃ কার্য নির্বাহী পরিষদের নিকটও জাবাবদিহী করবেন।

 

নায়েব বা সহকারী পরিচালকের দায়িত্ব ক্ষমতা:

৪১. নায়েব ও সহকারী পরিচালকের দায়িত্ব ও ক্ষমতা জামেয়া প্রধানের প্রদত্ত ক্ষমতার মধ্যে সীমিত থাকবে।

৪২. জামেয়া প্রধানের অনুপস্থিতিতে সহকারী প্রধানের দায়িত্ব এবং ক্ষমতা জামেয়া প্রধানের অনুরূপ হবে।

৪৩. মজলিশে শূরা অথবা কার্য নির্বাহী পরিষদের পক্ষ হতে যদি কোন ব্যক্তিকে প্রধান পরিচালকের স্থানে নিযুক্ত করা হয়, তবে তাঁর ক্ষমতা ও দায়িত্ব প্রধান পরিচালকের সমতুল্য হবে।

জামেয়া শিক্ষা পরিচালনা বিভাগের প্রধান:

৪৪. শিক্ষা পরিচালনা বিভাগের প্রধান নিম্নোল্লোখিত গুণাবলীর অধিকারী হবেন।

(ক) জামেয়ার নীতিমালার উপর অটল থাকা।

(খ) দ্বীনি ইলমে বিচক্ষণ ও অভিজ্ঞ হতে হবে।

(গ) খোদাভীতি এবং সততার (তাকওয়ার) ব্যাপারে জামাতের মধ্যে অন্যতম গ্রহণযোগ্য স্বীকৃত হতে হবে।

(ঘ) প্রভাবশালী এবং (সঠিক সিদ্ধান্ত প্রদানকারী) বিচারক হতে হবে।

(ঙ) বিভাগীয় দায়িত্ব (যিম্মাদারী) এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক কর্মকান্ডে যোগ্য এবং অভিজ্ঞ হতে হবে।

(চ) কর্মঠ ও ব্যক্তিত্বশীল হতে হবে।

(ছ) জামেয়ার ব্যাপারে (মুখলেছ) আন্তরিক হতে হবে।

(জ) শিক্ষা পরিচালনা বিভাগের প্রধান, শিক্ষা বিভাগের জন্য উচ্চ পর্যায়ের একজন দায়িত্বশীল (যিম্মাদার) হবেন এবং কার্য নির্বাহী পরিষদ ও জামেয়া প্রধানের নিকট জবাবদিহি হবেন।

 

তালীমাত শিক্ষা পরিচালা বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব ক্ষমতা:

৪৫. (ক) (তা’লীমাত) শিক্ষা পরিচালনা বিভাগের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল কার্যের রক্ষণা-বেক্ষণ।

(খ) ভর্তি পরীক্ষা পরিচালনা করা, ছাত্রদের ভর্তি করা এবং না করা তার উপর নির্ভরশীল।

(গ) পুরাতন ছাত্রদের পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে তাদের উন্নতি-অবনতির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা।

(ঘ) শিক্ষাবর্ষের প্রারম্ভে পাঠ বন্টন করা এবং প্রয়োজন বশতঃ তা পরির্তন করা।

(ঙ) পাঠ্যসূচী অনুসারে শিক্ষা প্রদানের ব্যবস্থা করা এবং প্রয়োজনানুসারে পাঠ্যসূচী পরিবর্তন বা সংশোধনের জন্য কার্য নির্বাহী পরিষদে উপস্থাপন করা।

(চ) ত্রৈমাসিক, ষাষ্মাসিক ও বার্ষিক পরীক্ষাসমূহ পরিচালনা করা এবং পাঠ্য সীমা চিহ্নিত পূর্বক কিতাবসমূহ পরীক্ষার অন্তর্ভূক্ত করা ও না করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা। পরীক্ষার ফলাফল রেজিষ্ট্রিতে লিপিবদ্ধ করা, যোগ্য ছাত্রদের পুরস্কারের তালিকা তৈরী করা, পুরস্কার নির্ধারণ করা, অকৃতকার্য ছাত্রদের নামের তালিকা তৈরী করে জামেয়া প্রধানের নিকট হস্তান্তর করা যাতে তাদের ব্যাপারে বিশেষ বিধানের ব্যবস্থা নেওয়া যায়।

(ছ) শিক্ষাদানের সময় শিক্ষক ও ছাত্রদের উপস্থিতির দিকে লক্ষ্য রাখা এবং পাঠ্য বিষয় সমাপ্তির ব্যবস্থা করা।

(জ) শিক্ষকদের সাধারণ অবহেলার জন্যে হুঁশিয়ার করা, বার বার অথবা সাধারণ নয়, এমন অবহেলা প্রদর্শনের জন্যে জামেয়া প্রধানের নিকট রিপোর্ট পেশ করা। ছাত্রদের ক্ষেত্রে বহিস্কার ব্যতীত অন্য সকল শাস্তি কার্যে পরিণত করা।

(ঝ) অধীনস্ত বিভাগের রিপোর্টসমূহ কার্য নির্বাহী পরিষদে উপস্থাপন করা।

(ঞ) ছাত্রদের লেখাপড়া ও চরিত্রের দিকে লক্ষ্য রাখা। সময় সময় তাদেরকে ওয়াজ-নসীহত দ্বারা চরিত্র গঠনে অনুপ্রাণিত করা, দুশ্চরিত্রের ও অপকর্মে লিপ্ত ছাত্রদেরকে শাস্তি প্রদান করা।

(ট) যে ছাত্র নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও জামেয়ার নীতির বিরুদ্ধাচরণ করবে, কর্তব্য ও দায়িত্ব পালনে অবহেলা প্রদর্শন করবে, জামেয়ার সম্মানিত ব্যক্তিবর্গের সামনে ঔদ্ধত্য পূর্ণ আচরণ করবে কিংবা শরীয়ত বিরোধী কোন কর্মে আত্মনিয়োগ করবে সে বহিস্কারের যোগ্য হওয়ায় তার বিরুদ্ধে জামেয়া প্রধানের নিকট রিপোর্ট পেশ করা।

জামেয়ার ছাত্রবৃন্দ:

৪৬. জামেয়ার ভর্তিচ্ছুক ছাত্রদের নিকট থেকে মাসিক কোন ফিস নেওয়া হবে না বরং নির্দিষ্ট কানুন অনুযায়ী জামেয়া ছাত্রদের খোরাকী, কিতাব এবং বাসস্থানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন।

৪৭. জামেয়ার পক্ষ থেকে ছাত্রদেরকে শিক্ষা, আইন-শৃঙ্খলা, উপদেশ ও আইন-কানুন সম্পর্কীয় যে পরামর্শ দেওয়া হয়, তা অবশ্য প্রতিপালন করতে হবে।

৪৮. আচার-আচরণ ও স্বভাবের ক্ষেত্রে ছাত্রদেরকে শরীয়তের অনুসরণ করা জরুরী। অবাধ্য ছাত্র (জামেয়ার কানুন লংঘনকারী) বহিস্কারের যোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

জামেয়ার শিক্ষাবছর:

৪৯. জামেয়ার শিক্ষা বছর শাওয়াল মাস থেকে শুরু হবে এবং শাবান মাসে শেষ হবে এবং অর্থ বছরও একই শাবান থেকে শুরু হয়ে পরবর্তী রজব মাসে সমাপ্ত হবে।

৫০. নাজেরা (ইসলামী কিন্ডারগার্টেন) এবং ‘তাহফীজুল কুরআন’ বিভাগের শিক্ষক, কর্মচারীবৃন্দকে রমজান মাসে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনের জন্যে ডবল ভাতা (বেতন) প্রদান করা হবে।

৫১. জামেয়ার প্রতিদিন ছয় ঘন্টা শিক্ষা প্রদান করা।

৫২. কর্মচারীদেরকে কাজের সময় নির্ধারণের ব্যাপারে অফিস কর্মকর্তা জামেয়া প্রধানের সঙ্গে পরামর্শ সাপেক্ষে সময় নির্ধারণ করবেন।

 

জামেয়ার পরীক্ষা:

৫৩. বছরে দু’বার ছাত্রদের পাঠ্য বিষয়ের উপর এবং বছরের শেষে বার্ষিক পরীক্ষা হবে। ঐ পরীক্ষার ফলাফলের উপর তাদের উন্নতি এবং খোরাকীর ব্যবস্থা নির্ভর করবে।

 

জামেয়ার (বন্ধ) ছুটি:

৫৪. ২৫ শে শাবান হতে ৫ই শাওয়াল পর্যন্ত জামেয়া বন্ধের পর খোলা হলে পুনরায় ৬ই শাওয়াল হতে নতুন বছরের শিক্ষা শুরু হবে।

৫৫. ঈদুল আযহায় ৫ই জিলহজ্ব হতে ১৬ জিলহজ্ব এবং প্রতি জুমাবার দফতর (অফিস) এবং মতবখ (হোটেল) ব্যতীত অন্য সবকিছু বন্ধ থাকবে।

৫৬. কোন শিক্ষক বা কর্মচারী অবকাশের (ছুটি) সময় বিভাগীয় দায়িত্বশীলের অনুমতি ব্যতিরেকে অন্যত্র যাওয়ার অনুমতি নেই।

৫৭. বন্ধে (ছুটির দিনে) কোন শিক্ষক বা কর্মচারীকে জামেয়া প্রধান তাৎক্ষণিক কোন প্রয়োজনীয় কাজে নিয়োগ করলে তাঁর ‍উপর উক্ত কাজের দায়িত্ব বর্তাবে, এজন্য তাঁকে অতিরিক্ত ভাতা প্রদান করা হবে।

 

শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দের ছুটি:

৫৮. হিসাব বিভাগ ও মতবখের কর্মচারী এবং নাজেরা ও হিফজ বিভাগের শিক্ষকমন্ডলী ব্যতীত অন্যন্য শিক্ষক ও কর্মচারীবৃন্দ বার্ষিক ২২ দিন ঘটনা ক্রমে ছুটি (বেতনসহ) পেতে পারেন। নবাগত শিক্ষক ছয় মাস পরে ১১ দিন (এত্তেফাকিয়া) ছুটির বেতন পেতে পারেন। ‍

৫৯. রুগ্ন ও পীড়িত ব্যক্তি বার্ষিক একমাস ছুটি পেতে পারেন তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বশীলের পক্ষ থেকে পীড়িতের কর্মে যোগদানের অক্ষমতা, স্বীকৃত হতে হবে।

৬০. কোন কর্মচারী বা শিক্ষক বিভাগীয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতীত অনুপস্থিত থাকতে পারেন না। এক্ষেত্রে তিনি বিরুদ্ধাচরণকারী র্ভৎসনার যোগ্য। এমনটি বার বার হলে তিনি বহিস্কারের যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

৬১. যদি বেশী দিনের ছুটি প্রয়োজন হয়, তাহলে ছুটি দিবসের এক সপ্তাহ পূর্বে লিখিত দরখাস্তের মাধ্যমে ছুটি অনুমোদন করিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

৬২. হিসাব বিভাগ ও রন্ধনশালার কর্মচারীগণ এবং  নাজেরা ও হিফজ বিভাগের শিক্ষকমন্ডলী যেহেতু দীর্ঘছুটিতে কোন উপকৃত হয় না সেহেতু তাদের এন্তেজামিয়া ছুটি এক মাস হবে।

৬৩. জামেয়ার উচ্চপদস্থ কর্মচারীবৃন্দের পদমর্যদা নির্ণয় ও পদোন্নতি মজলিশে শূরা কর্তৃক নির্ণিত পদমর্যাদার অন্তর্ভূক্ত হবে।

 

কর্মচারীদের পদচ্যুতি:

৬৪. কোন কর্মচারী যদি অবসর গ্রহণ করতে চান তাহলে একমাস পূর্বে জামেয়া প্রধানকে অবহিত করা প্রয়োজন। তদ্রুপ ছাটাইকৃত কর্মচারীকেও একমাস পূর্বে অবগত করানো প্রয়োজন।

 

সফর (যাতায়ত):

৬৫. শূরা বা কার্য নির্বাহী পরিষদের সদস্য এবং জামেয়ার কর্মচারীবর্গের সফর (যাতায়ত) ইত্যাদি জামেয়ার উপলক্ষ্যে হলে, সফরের খরচ জামেয়ার পক্ষ থেকে আদায় করা যাবে।

৬৬. জামেয়া যদি কোন বুযুর্গ বা জামেয়ার শুভাকাঙ্খীকে আমন্ত্রণ জানান তাহলে তার যাবতীয় খরচ জামেয়ার পক্ষ থেকে আদায় করা যাবে।

৬৭. যে ব্যক্তি জামেয়ার প্রয়োজনীয় কার্যে হিসাবানুযায়ী অর্থ গ্রহণ করবে, কর্ম সম্পাদনের পর সমুদয় হিসেব জামেয়াকে বুঝিয়ে দেওয়ার পূর্বে কোন অর্থ প্রদান করা যাবে না। দীর্ঘ সময় জনিত কর্মের ক্ষেত্রে প্রত্যেক ১৫ দিনের ব্যয়কৃত অর্থের হিসাব জমা দেওয়া প্রয়োজন।

৬৮. জামেয়ার যে কোন অর্থ সঠিক সময়ে জমা না দেওয়া এবং অকারণে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করাকে খিয়ানত হিসেবে আখ্যায়িত করা হবে।

৬৯. সমস্ত বছরের অডিটর নিয়োগ পরীক্ষা করার জন্যে মজলিশে শূরা কাউকে পর্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ করবেন। পর্যবেক্ষণের বিস্তারিত রিপোর্ট আকারে প্রকাশ ও প্রচার করা হবে।

৭০. বিগত ২২-০২-২১ হিজরী মোতাবেক ২৭-০৫-২০০০ ইংরেজী তারিখের অধিবেশনের ৫নং সিদ্ধান্তে আল জামেয়ার সংবিধান নিম্নরূপ সংশোধিত ও অনুমোদিত হয়।

(ক) সংবিধানের নামে ‘পটিয়া’ শব্দটি সংযুক্ত করা।

(খ) জামেয়ার প্রধানের পদবী বিভিন্ন ভাষায় নিম্নরূপ হবে: আরবীতে ‘রাঈস’ উর্দূতে ‘মুহতামিম’, বাংলায় ‘মহা পরিচালক’ এবং ইংরেজীতে ‘রেক্টর’।

(গ) ইংরেজী ও বাংলা ভাষায় জামেয়ার নাম ভবিষ্যতে নিম্নরূপ হবে;

ইংরেজী: AL JAMEAH AL ISLAMIAH, PATIYA.

বাংলা: আল-জামেয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া।

জামেয়ার সংবিধান অনুমোধিত হইল

এম, এ বশীর

২৯-১০-৭৯ ইং

সভাপতির স্বাক্ষর

Copyright©2018: JAMIAH ISLAMIAH PATIYA II Design By:F.A.CREATIVE FIRM